ভারতীয় সৈন্য ফেরত পাঠানো এক অবিস্মরণীয় কূটনৈতিক সাফল্য


শুধু আলোচনার মাধ্যমে এদেশের মাটি থেকে ভারতীয় সৈন্য প্রত্যাহারের ব্যবস্থা করার একক কৃতিত্ব হচ্ছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের- উল্লেখ করে এম ‍আর আখতার মুকুল লিখেছেন,

উনি (শেখ মুজিবুর রহমান) পাইপে কয়েকটা টান দিয়ে হালকা মেজাজে কথা আরম্ভ করলেন।

“কানের মাঝ থাইক্যা চুল বাইরাইয়া আইছে ভারতে এমন সব ঝানু পুরানো আইসিএস অফিসার দেখছোস্? এরা সব ইন্দিরা গান্ধীরে বুদ্ধি দেওনের আগেই আজ আলোচনার সময় মাদামের হাত ধইর‌্যা কথা লমু। জানোস্ কি কথা? কথাটা হইতেছে, মাদাম, তুমি বাংলাদেশ থাইক্যা কবে ইন্ডিয়ান সোলজার ফেরত আনবা?”

বঙ্গবন্ধু তাঁর দেয়া প্রতিশ্রুতি রেখেছিলেন। কোলকাতার রাজভবনে ফার্স্ট রাউন্ড আলোচনার শুরুতে দুজনে পরস্পরের কুশলাদি বিনিময় করলেন। এরপর বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে সক্রিয়ভাবে সাহায্য করার জন্য ভারতের জনগণ, ভারত সরকার এবং প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীকে ধন্যবাদ জানিয়ে বঙ্গবন্ধু হঠাৎ করে আসল কথাটি উত্থাপন করলেন।

শেখ মুজিব: মাদাম, আপনে কবে নাগাদ বাংলাদেশ থেকে ভারতীয় সৈন্য প্রত্যাহার করবেন?

ইন্দিরা গান্ধী: বাংলাদেশে আইন-শৃংখলার পরিস্থিতি তো এখনও পর্যন্ত নাজুক পর্যায়ে রয়েছে। পুরো “সিচুয়েশন” বাংলাদেশ সরকারের কন্ট্রোলে আসা পর্যন্ত অপেক্ষা করাটা কি বাঞ্চনীয় নয়? অবশ্য আপনি যেভাবে বলবেন সেটাই করা হবে।

শেখ মুজিব: মুক্তিযুদ্ধে আমাদের প্রায় ৩০ লাখ লোক আত্মাহুতি দিয়েছে। স্বাধীন বাংলাদেশে আইন ও শৃংখলাজনিত পরিস্থিতির জন্য আরও যদি লাখ দশেক লোকের মৃত্যু হয়, আমি সেই অবস্থাটা বরদাশত্ করতে রাজী আছি। কিন্তু আপনারা অকৃত্রিম বন্ধু বলেই বলছি, বৃহত্তর স্বার্থে বাংলাদেশ থেকে ভারতীয় সৈন্য প্রত্যাহার করলে আমরা কৃতজ্ঞ থাকব।

ইন্দিরা গান্ধী: এক্সেলেনসি, কারণটা আর একটু ব্যাখ্যা করলে খুশি হবো।

শেখ মুজিব: এখন হচ্ছে বাংলাদেশে পুনর্গঠনের সময়। তাই এই মুহুর্তে দেশে শক্তিশালী রাজনৈতিক বিরোধীতা আমাদের কাম্য নয়। কিন্তু ভারতীয় সৈন্যের উপস্থিতিকে অছিলা করে আমাদের বিরোধী পক্ষ দ্রুত সংগঠিত হতে সক্ষম হবে বলে মনে হয়। মাদাম, আপনেও বোধ হয় এই অবস্থা চাইতে পারেন না। তাহলে কবে নাগাদ ভারতীয় সৈন্য প্রত্যাহার করছেন?

ইন্দিরা গান্ধী: (ঘরের সিলিং-এর দিকে তাকিয়ে একটু চিন্তা করলেন) এক্সেলেনসী, আমার সিদ্ধান্ত হচ্ছে, আগামী ১৭ মার্চ বাংলাদেশের মাটি থেকে ভারতীয় সৈন্য প্রত্যাহার করা হবে।

শেখ মুজিব: মাদাম কেনো এই বিশেষ দিন ১৭ মার্চের কথা বললেন?

ইন্দিরা গান্ধী: এক্সেলেনসী প্রাইম মিনিস্টার, ১৭ মার্চ হচ্ছে আপনার জন্মদিন। এই বিশেষ দিনের মধ্যে আমাদের সৈন্যরা বাংলাদেশ থেকে ভারতে ফেরত আসবে।

ভারতীয় সৈন্যদের শেষ দলটি বাংলার মাটি ত্যাগ করলো ১৯৭২ সালের ১৭ মার্চ। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের জন্মদিন।

(সূত্র: চল্লিশ থেকে একাত্তর)

———————————————————————————

২০০৯ সালের কোন একসময় একজন বাংলাদেশী তরুণ অর্থনীতিবিদ আমাকে ক্ষোভের সঙ্গে বলেছিল, দিল্লীর জাদুঘরে ১৯৭১ সালের যুদ্ধ প্রসঙ্গে লেখা আছে ‘ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধ’। কোথাও বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ কথাটি নাকি সেখানে উল্লেখ নেই। তার জিজ্ঞাসা ছিল, আমি সেটা দেখেছি কিনা? আমি দিল্লী জাদুঘরে কখনো যাইনি। তাই বললাম, ‘আমি দেখিনি।’ সে আমাকে পরামর্শ দিয়েছে আমার নাকি সেটা দেখা উচি

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out /  পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  পরিবর্তন )

Connecting to %s