তোমরা এই দেশকে ভালোবাসবে যে কারণে-১


এই ধারাবাহিক লেখাটি আমার চেয়ে বয়সে যারা ছোট তাদের জন্য। সেকারণে লেখাতে তুমি সম্বোধন করা হচ্ছে।

বাংলাদেশ যখন স্বাধীন হয়েছিল তখন দেশটি ছিলো খাদ্য ঘাটতির দেশ। ১৯৭১-৭২ সালে দেশে খাদ্য ঘাটতির পরিমাণ ছিলো ২০ লাখ টন। ১৯৭২-৭৩ সালে খাদ্য উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ২৫% শতাংশ কম হয়। তারপর থেকে দেশে খাদ্য উৎপাদন বাড়তে থাকে। এমনকি ১৯৭৩-৭৪ সালে দেশের কয়েকটি জেলায় বন্যা ও জলোচ্ছ্বাস হওয়া সত্বেও দেশে ১ কোটি ১৮ লাখ টনেরও বেশি খাদ্য উৎপাদন হয়েছিল। ৭৪ এর দুর্ভিক্ষে মানুষের মৃত্যুর অন্যমত প্রধান কারণগুলো হলো খাদ্য বণ্টন ব্যবস্থায় অনিয়ম, দুর্নীতি এবং সময়মতো খাদ্য আমদানী ও সরকারিভাবে খাদ্য সংগ্রহ না করতে পারা।

শেখ মুজিবুর রহমান ও জিয়াউর রহমানের আমলে দেশ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতার দিকে অগ্রসর হলেও সেই ধারাবাহিকতায় ছেদ টানে এরশাদ। তার শাসনামলে বিপুল পরিমাণে খাদ্য আমদানী করে দেশের কৃষকদের বেকায়দায় ফেলে দেওয়া হয়েছিল। ১৯৮০-৮১ সালে যেখানে আভ্যন্তরীণ সংগ্রহ ছিলো ১০ লাখ টন। ৮৮-৮৯ সালে তা ৩ লাখ ৮২ হাজার টনে নামিয়ে আনা হয়।

বেগম খালেদা জিয়ার শাসনামলে খাদ্য উৎপাদন বাড়তে থাকে। শেখ হাসিনার প্রথম শাসনামলে কৃষি খাতের প্রবৃদ্ধি অতীতের সকল রেকর্ড ছাড়িয়ে যায়। পরবর্তীতে আবারো যখন খালেদা জিয়া ক্ষমতায় এলেন তার সরকার শেখ হাসিনা সরকারের খাদ্য উৎপাদনের ধারাবাহিকতা ধরে রাখলেন। এখন আবার শেখ হাসিনার সরকার ক্ষমতায়। দেশের খাদ্য উৎপাদনের সেই ধারাবাহিকতা বজায় আছে।

তোমরা এই দেশকে এজন্য ভালোবাসবে যে, বাংলাদেশের জনসংখ্যা ১৯৭১ সালের তুলনায় দ্বিগুণ হওয়ার পরও এই দেশে খাদ্যের ঘাটতি হচ্ছে না। এই সাফল্য এই দেশের কৃষকের। কৃষি বিভাগের। রাজনীতিবিদদের। হয়তো আমরা আরো ভালো করতে পারতাম। সেকথা মেনে নিয়েও বলতে হয়, আমরা কিন্তু কম ভালো করিনি।

চলবে……..

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s