গতানুগতিক যুক্তিতে মহিমান্বিত গণতান্ত্রিক দুর্নীতি


১. সবাই করছে আমি না করলে আর এমন কি হবে? অতএব আমিও করব।- এটা একটা কমন যুক্তি। আমার ৪৩ বছরের জীবনে বোধহয় সবচেয়ে বেশি বার এই কথাগুলো শুনেছি। শুনছি।  হয়তো শুনতেই থাকব।

২. অন্যরা করলে কিছু হয় না আর আমি করলেই যতো দোষ।- এটাও একটা কমন যুক্তি। প্রায়ই শুনি। শুনছি। হয়তো শুনতেই থাকব।

৩. নিজের দোষ দেখতে পাও না। আমারে কও।- এটাও অপরাধীদের অপরাধ করার একটা কমন যুক্তি। প্রায়ই শুনি। শুনছি। হয়তো শুনতেই থাকব।

 

১৯৯১ সালে বাংলাদেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর উল্লেখিত যুক্তিগুলো আওয়ামী লীগ ও বিএনপি তাদের প্রয়োজনমতো ব্যবহার করে আসছে। ফলে, দুর্নীতি করার ক্ষেত্রে ব্যক্তির যুক্তি এখন রাষ্ট্রীয় যুক্তির পর্যায়ে উন্নীত হয়েছে। এই দেশের মহান রাজনীতিবিদগণ ও তাদের তাবেদার শিক্ষিত বুদ্ধিজীবিগণ অন্যের অপরাধ করার যুক্তিতে মহা উল্লাসে এখন নিজেদের অপরাধকে মহিমান্বিত করতে ওস্তাদ হয়ে উঠেছেন। বিগত ২১ বছরের সাধনায় তারা দুর্নীতিকে গণতন্ত্রের লেবাস পরিয়েছেন।

স্বৈরাচারের দুর্নীতিকে মানুষ বাধ্য হয়ে মেনে নেয়। যেমনটা মেনে নিয়েছিল এরশাদের দুর্নীতিকে। কিন্তু বাংলাদেশের দুর্নীতি এখন গণতান্ত্রিক হওয়ায় এটি অনেক বেশি মহিমান্বিত হয়েছে। এমপিদের দুর্নীতিকে এলাকার মানুষেরা এখন শৌর্য বীযের প্রতীক হিসেবে গণ্য করে। কে কতো বড় দুর্নীতিবাজ সেটা এখন রীতিমতো গর্বের বিষয়। শিশু কিশোররা বড় হয়ে যা হতে চায় বলে, সেটা আসলে আর্থিক দুর্নীতির বড় রূপ। আমাদের মন্ত্রী এমপিরা অত্যন্ত সফলতার সঙ্গে তরুণ প্রজন্মের মাথা বিগড়ে দিতে পেরেছেন। ফলে তারা নিজেদের আর্থিক দুর্নীতি দিয়ে মানসিক দুর্নীতির বট বৃক্ষ রোপন করতে পেরেছেন। এর ডালপালা শত শত বছর ধরে দুর্নীতি সমাজে জিইয়ে রাখতে পারবে।

দুর্নীতি এখন প্রাতিষ্ঠানিক মর্যাদা পাওয়ার পথে অগ্রসরমাণ। এমন দিন আসবে যেদিন এই দেশে দুর্নীতির উপর পিএইচডি ডিগ্রী দেওয়া হবে। আমি নিশ্চিত সেই দুর্নীতির বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি হওয়ার জন্য অনেক রথি মহারথী লাইন দেবেন। সেখান থেকে একজন যোগ্যকে বের করা দুর্নীতি বিশ্ববিদ্যালয়ের চ্যান্সেলরের পক্ষে এখনকার চেয়ে কঠিন হবে। কারণ বাংলাদেশে দুর্নীতি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি হওয়ার মতো যোগ্য লোকের সংখ্যা অনেক বেশি। বলা যায় না, এই অবস্থাকে কাটিয়ে উঠতে হয়তো জেলায় জেলায় দুর্নীতির বিশ্ববিদ্যালয় করতে হতে পারে।

সাবেক আমলা, সাবেক পুলিশ কর্মকর্তা, সাবেক মন্ত্রীদের ভীড়ে স্থানীয় পর্যায়ের দুর্নীতিবাজরা কতোটা সুবিধা করতে পারছেন জানি না। তবে আগামীতে তাদের জন্য বড় ধরনের সুখবর অপেক্ষা করছে।

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s