পরকীয়া!


এক.

পরকীয়া নিয়ে একটি গল্প শুনছিলাম কয়েকদিন আগে। গল্পে তিন পুরুষকে বিবাহিত জীবন নিয়ে প্রশ্ন করা হচ্ছে মৃত্যুর পর।

প্রশ্নকারী: তুমি কি বিবাহিত জীবনে পরকীয়া করেছো?

প্রথমজন: জ্বি করেছি।

প্রশ্নকারী: কতোজনের সঙ্গে পরকীয়া করেছো?

প্রথমজন: জ্বি ১০ জনের সঙ্গে।

প্রশ্নকারী তাকে একটা সাইকেল দিল।

এবার দ্বিতীয়জনের পালা।

প্রশ্নকারী: তুমি কি বিবাহিত জীবনে পরকীয়া করেছো?

দ্বিতীয়জন: জ্বি করেছি।

প্রশ্নকারী: কতোজনের সঙ্গে পরকীয়া করেছো?

দ্বিতীয়জন: জ্বি ৫ জনের সঙ্গে।

প্রশ্নকারী তাকে একটা মোটর সাইকেল দিল।

এবার তৃতীয় জনের পালা। প্রশ্ন একই-

প্রশ্নকারী: তুমি কি বিবাহিত জীবনে পরকীয়া করেছো?

তৃতীয়জন: জ্বি না।

প্রশ্নকারী: একজনের সঙ্গেও না?

তৃতীয়জন: আমি আমার স্ত্রীর প্রতি বিশ্বস্ত ছিলাম।

প্রশ্নকারী তাকে মোটরগাড়ি দিল।

কয়েকদিন পরের কথা। প্রথমজন সাইকেল নিয়ে যাচ্ছিল। তখন পথের মধ্যে মোটরগাড়ি পাওয়া তৃতীয়জনের সঙ্গে দেখা। তৃতীয়জন রাস্তার পাশে গাড়ি পার্ক করে ভেউ ভেউ করে কাঁদছে। সাইকেল থামিয়ে প্রথমজন তৃতীয়জনকে জিজ্ঞাসা করল তার কি হয়েছে? কেন কাঁদছে?

উত্তরে তৃতীয়জন বলল- বাড়ি ফিরে দেখি আমার বউ সাইকেল চালাচ্ছে। আমি এতো বড় ভুল কি করে করলাম। ও মাগো……………গো……

এই বলে সে হাপুস নয়নে কাঁদতেই থাকল।

গল্পটা এখানেই শেষ।

দুই.

পাঠক আপনার জন্য আমার প্রশ্নটি হলো- তৃতীয়জনের কান্নায় আপনার প্রতিক্রিয়া কি? তৃতীয়জনের জায়গায় আপনি হলে কি করতেন?

তিন.
গল্পটি শোনার পর আমার একটি প্রতিক্রিয়া হয়েছিল। সেই প্রতিক্রিয়া নিয়েই আমার এই লেখা। তৃতীয়জনের জায়গায় আমি হলে আমি কিন্তু মোটেই কান্না করতাম না। কারণ আমার সততা ও নিষ্ঠা অন্যের উপর নির্ভরশীল নয়। অন্য একজন ভালো হলে তবে আমি ভালো হব। অন্য একজন খারাপ হলে আমি খারাপ হব। এই ধারণাটি মারাত্মক রকমের ভুল। আমাদেরকে নিজেদের জন্য ভালো হতে হবে। নিজেদের জন্যই সৎ হতে হবে। নিজের বিবেকের কাছে সুস্পষ্ট থাকতে হবে।

চার.
প্রায়ই বলতে শোনা যায়, আমি একা ট্যাক্স দিয়ে কি হবে? অন্যরা তো দেয় না। কিংবা আমি শুধু রাস্তায় থুথু না ফেললেই কি রাস্তা থুথু মুক্ত হবে? কিংবা রাস্তার পাশে প্রস্রাব করা আমি বন্ধ করলেই কি অন্যরা বন্ধ করবে?

এই যে আমি করলে কি হবে? এটাই যেন আমাদেরকে টেনে ধরে রেখেছে। আমরা অন্যরা কি করছে সেটা দেখে শুদ্ধ অশুদ্ধ কাজটি আমিও করব কি করব না সেটা ঠিক করতে চাই। যা নিতান্তই ভুল সিদ্ধান্ত।

যা হওয়া দরকার তা হলো আমাকে সঠিক কাজটি করতে হবে। এমনকি আমি যদি একাও হই। একসময় দেখা যাবে আমি আর একা নই।

পাঁচ.
বাংলাদেশের রাজনীতিতে এমপি মন্ত্রী মানেই টাকার কুমির। এমপি মন্ত্রী হতে চাওয়া মানেই টাকার ছড়াছড়ি। অতএব, যে বা যারা দেশের জন্য এবং মানুষের জন্য কাজ করতে আগ্রহী তারা রাজনীতি বিমুখ। কারণ তারা মনে করেন তাদের পক্ষে রাজনীতি করা সম্ভব নয়। কারণ তাদের পক্ষে টাকা পয়সা খরচ করা সম্ভব নয়। এই যে দৃষ্টিভঙ্গিটা সেটাও কিন্তু অন্যকে দেখে গড়ে উঠেছে। দীর্ঘদিন ধরে একটি ভুল দৃষ্টিভঙ্গি লালন করার মধ্য দিয়ে এটাকেই এখন বেশিরভাগ মানুষ মেনে নিচ্ছে। কিন্তু একবারও কি ভেবে দেখেছেন আপনি এই দৃষ্টিভঙ্গির সঙ্গে একমত কিনা? যদি একমত না হন তাহলে আপনি কেন এই ধরনের একটি ভুল ধারণা ভেঙ্গে দেওয়ার জন্য কাজ করবেন না। আপনি কেন অন্যের মতো হবেন? কে কি ভাবল সেটাই কি আপনার নিজেরও ভাবনা হবে? নাকি হওয়া উচিৎ?

ছয়.
যে মানুষটা পরকীয়া করে সে কি অন্যের দেখাদেখি পরকীয়া করে? নাকি তার নিজের ভালো লাগে বলে পরকীয়া করে? পরকীয়ার ক্ষেত্রে যদি নিজের ভালো লাগা গুরুত্ব পেতে পারে তাহলে দায়িত্ব কর্তব্যের বেলায় নয় কেন? তারমানে কি আমরা দায়িত্ব কর্তব্যকে ভালোবাসি না? ভেবে দেখবেন। আপনি নিজেকে দেশপ্রেমিক বলছেন কিন্তু দেশের জন্য ও দেশের জনগণের জন্য আপনি দায়িত্ব পালনে ইচ্ছুক নন, এটা কেমন কথা?

আসুন, যা কিছু কল্যাণকর সেই পথে হাটার চেষ্টা করি।

2 comments

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out /  পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  পরিবর্তন )

Connecting to %s