জীবনের জন্য ২ মিনিট


সূত্র: ইন্টারনেট

সূত্র: ইন্টারনেট

এই লেখাটি পড়ছেন।
তারমানে বেঁচে আছেন।
এই যে বেঁচে থাকা,
তার পেছনে কতোজনের অবদান আছে বলুন তো?

একটু ভাবুন,
আপনি শুধু বেঁচে আছেন না ভালো আছেন?
আপনার এই যে ভালো থাকা,
তার পেছনে কতোজনের অবদান আছে বলুন তো?

একটু ভাবুন,
শুধু কি অন্যরাই আপনার জন্য কিছু করছে না কি আপনিও অনে্যর জন্য কিছু করছেন?
এই যে অনে্যর জন্য আপনি করছেন, কেন করছেন বলুন তো?

আজ সকালে ঢাকার রাজপথসহ সড়কগুলো যারা ঝাড়ু দিল;
আজ সকালে দেশের সবগুলো বাগানে যারা পানি দিল;
আজ সকালে সারা দেশের পাবলিক ও প্রাইভেট টয়লেটগুলো যারা পরিস্কার করল;
আজ সকালে আপনার জন্য যে বা যারা সকালের নাস্তা তৈরি করল;
আজ সকালে যারা আপনার যাতায়াতকে নির্বিঘ্ন করল আপনাকে আপনার গন্তবে্য পৌঁছে দিল;
সেই রিকশাওয়ালা, সিএনজিওয়ালা, বাসচালক, গাড়ির ড্রাইভার তাদের কথা ভাবুন।
আপনি যখন কমপিউটারে কিংবা মোবাইলে আমার লেখা পড়ছেন তারা কিন্তু তাদের কাজটি করেই যাচ্ছে
তারা হয়তো কখনোই এই লেখা পড়বে না।
তাদের সেই সামর্থ্যও নেই।
একবার ভাবুন স্বাধীন এই দেশে তারা কি অবদান রেখে চলেছেন।

সেই কৃষকের কথা ভাবুন,
যাদের উৎপাদিত ধানের ভাত কিংবা গমের রুটি খেযে আপনার আজকের দিনটা শুরু হলো।
পোলট্রির শ্রমিকের কথা ভাবুন,
যাদের উৎপাদিত ডিম কিংবা মাংস আপনি ও আপনার সন্তান খেলেন।
তারা নিজেরা কি খাচ্ছে?

যে পোশাকটি পড়ে আজকে আপনি অফিসে এলেন কিংবা প্রতিদিন নিজের আব্রু রক্ষা করেন
সেই পোশাকটি তৈরিতে যারা জড়িত সেই মানুষদের কথা ভাবুন,
আপনার লজ্জা নিবারণে তারা কতোটাই না অবদান রাখছেন।

এভাবে জীবনের প্রতিটি মুহুর্তেই আপনি অন্যের সাহায্য নিচ্ছেন।
অন্যরা আপনার সাহায্য নিচ্ছেন।
আপনি নিজে একজন ম‍র্যাদাবান মানুষ।
আপনারই মতো আরেকজন যখন আপনার সেবায় নিয়োজিত সে কি ম‍র্যাদাবান মানুষ নয়?

আসলে সবাই যার যার দায়িত্ব পালন করছেন।
সবাই যার যার অবস্থান থেকে কাজ করছেন।
দায়িত্বগুলোই শুধু ভিন্ন ভিন্ন।
মানুষগুলো কি?

আপনি কি বলতে পারবেন,
তারা মানুষ নয়?

তারা আসলেই আপনার আমার মতো মানুষ।
তাই যদি হবে তাহলে একজন মানুষের ন্যূনতম চাহিদাগুলো পূরণ হওয়া আবশ্যক নয় কি?
যদি সেটা না হয়ে থাকে,
তার দায়ভার আপনার আমার।
কারণ ১৯৭১ সালে যে রাষ্ট্র আমরা স্বাধীন করেছি,
সেই রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্ব আমাদেরই।

সেই উত্তাল একাত্তরে সাড়ে সাত কোটি মানুষ স্বপ্ন দেখেছিল,
একটি সোনার বাংলাদেশের।
সেই দিন তারা অকাতরে জীবন দিয়েছিল,
একটি সুন্দর আগামীর জন্য।

তাদের দেখা সেই আগামীতে আমরা দাঁড়িয়ে আছি।
বুকে হাত দিয়ে বলুন তো,
আমরা কি আমাদের সেই সূ‍র্য সন্তানদের স্বপ্নের আগামীতে বাস করি?
১৯৭১ সালে যে স্বপ্ন নিয়ে তারা মৃত্যুকে আলিঙ্গন করেছিল।
কেন সেই স্বপ্ন পূরণ হলো না?

কোথায় গলদ হলো?
১৯৭১ যদি মিথ্যা না হয়,
১৯৭১ এর স্বপ্ন যদি মিথ্যা না হয়,
তাহলে আজকের বাংলাদেশ এমন কেন?

এই প্রশ্নের উত্তর নয়,
এই প্রশ্নের অবসান করার দায়িত্ব আপনার আমার।
আসুন নিজেদের দায়িত্ব সম্পর্কে সচেতন হই।
আসুন নিজেদের দায়িত্ব পালন করি।

যারা ১৯৭১ সালের স্বপ্ন সফল করার ক্ষমতা রাখে।
যারা ১৯৭১ সালের স্বপ্ন সফল করার দক্ষতা রাখে।
সেই সকল আর্থিক ও চিন্তায় দুর্নীতিমুক্ত মানুষরা একত্রিত হোক এই কামনায়।

বিজয় মাসের শুভেচ্ছা।

১ ডিসেম্বর ২০১৪
গুলশান; ঢাকা

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s